Home Blog Page 3

আনোয়ারায় ইয়াছীন হত্যার আসামীরা বেপরোয়া, আরও হত্যার হুুমকি

0

এনামুল হক নাবিদ, আনোয়ারা থেকে:

আনোয়ারায় ইঢাছীন হত্যা মামলার আসামিরা-শুভ চট্টগ্রাম।

কবরস্থানের মালিকানা ও গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে গত ২৪ মে আপন চাচাত ভাই বোনরা নির্মমভাবে কুপিয়ে খুন করে  ৯ নং পরৈকোড়া ইউনিয়নের তালসরা গ্রামের যুবক মোঃ ইয়াছীন। এসময় কুপিয়ে মারত্বকভাবে আহত করা হয় ইয়াছীনের বৃদ্ধা মাসহ আরো বেশ কয়েকজনকে।

এই ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে ইয়াছীনের বড় ভাই শেখ ফরিদ। মামলায় আসামী করা হয় নারী পুরুষসহ ৫ জনকে। ওই দিন ঘটনাস্থল থেকে ঘটনার মূলহোতা মাসুদা খাতুনকে আটক করে পুলিশ এবং ঘটনার পাঁচ মাস পর অপর এক পালাতক আসামী আব্দুল ছুবুর (২৭) কে নগরীর কালা মিয়া বাজার থেকে আটক করে পুলিশ। বাকী তিন আসামী এখনো পালাতক রয়েছে।

ইয়াছীনের পরিবার জানায়, এই ঘটনায় আটক হওয়া মহিলা মাসুদা খাতুন জামিনে বেরিয়ে আসার পর তাদের পরিবারের উপর নতুন করে চাপ সৃষ্টি করেছে হামলাকারীরা। মামলা তুলে নিতে ইয়াছীনের পরিবারের উপর নতুন করে হত্যা ও অপহরণের বিভিন্ন নাম্বার থেকে মোবাইল ফোনে হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

এছাড়াও নতুন করে হয়রানির উদ্দেশ্যে ইয়ছীনের পরিবারের উপর রুজু করা হয়েছে ডাকাতি ও নারী নির্যাতন মামলা। এই যেন মরার উপর কড়ার ঘাঁ। কাদের ইন্ধনে এই মামলা হয়েছে এই নিয়ে জনসাধারণের মাঝে সৃষ্টি হয়েছে চরম কৌতুহল। ডাকাতি মামলার বাদী পক্ষের এক সাক্ষীও এই নিয়ে করেছে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ। কেন থাকে সাজানো একটি ঘটনায় সাক্ষী বানানো হলো। যা একটি ফোন রেকর্ড ফাঁস হওয়ার মাধ্যমে এলাকাবাসী তা জানতে পারে।

এ বিষয়ে কথা হয় পরৈকোড়া ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জাফর মিয়ার সাথে। তিনি বলেন, আমি একজন ইউপি সদস্য সত্য কথা বলার আমার দায়িত্ব রয়েছে। ডাকাতি মামলা, নারী নির্যাতন মামলা এগুলো নেহায়াত একটি ষড়যন্ত্র। এই মামলা তারা করছে ইয়াছীন হত্যার মোড় ভিন্ন পথে নিয়ে যাওয়ার জন্য।

এই ইউপি সদস্য বলেন, এরা পাঁচ ভাইয়ের মধ্যে কারো জন্য আজ পর্যন্ত গ্রামে একটি শালিসি বৈঠক পর্যন্ত হয় নাই। আর আমি একজন গ্রামের জনপ্রতিনিধি আমি জানব না আমার গ্রামে কি হয়েছে। এখানে এধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। এগুলো সব মিথ্যা বানোয়াট। এই বিষয়ে জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমি সর্তক রয়েছি।

আসামী আটক ও ইয়াছীনের পরিবারের উপর হয়রানীর বিষয়ে জানতে চাইলে আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম দিদারুল ইসলাম শিকদার বলেন, ইয়াছীন হত্যা মামলার অন্যতম এক আসামী আব্দুর ছবুর আটক করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের আটকের চেষ্টা চলছে। হয়রানীর বিষয়ে তাদের বড় ভাই থানায় একটি জিডি করেছে। বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখতেছি। আর তাদের বিরুদ্ধে যে মামলা হয়েছি সেটি পিবিআই’র কাছে।

ঘটনার সূত্রপাত থেকে জানা যায়, ৫ ভাইয়ের মধ্যে ইয়াছীন ছিল সবার ছোট। ঘটনার দিন ইয়াছীনের পরিবারে কেউ না থাকায় গাছ কাটাকে কেন্দ্র করে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ইয়াছীনের উপর হামলা চালায় মাসুদা খাতুনের পরিবার। হামলায় ঘটনাস্থলে মৃত্যু হয় ইয়াছীনের। ঘটনায় ইয়াছীনের মাকেও কুপিয়ে জখম করে হামলাকারীরা। এই ঘটনার জন্য এলাকায় বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়। হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে এলাকাবাসী প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানায়। প্রশাসনও এ ব্যাপারে মূখ্য ভূমিকা রাখে।

এদিকে চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার আসামীরা জামিনে বেরিয়ে আসা পালাতক আসামীরা আটক না হওয়া উল্টো ইয়াছীনের পরিবারের উপর ডাকাতি মামলা,নারী নির্যাতন মামলা দিয়ে হয়রানি করায় এলাকাবাসীর তীব্র ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে। হত্যা মামলার আসামীদের এমন বেপরোয়া কর্ম কান্ডে অবাক করেছে তাদের। তারা মনে করছে আসলে এসব খুনিদের হাত কত লম্বা। এরা অপরাধ করে আবার এত সাহস পায় কি করে।

এলাকাবাসীর মতে, এসব খুনিদের কোন আশ্রয় প্রশ্রয় থাকতে নেই। এদের পরিচয় এরা হত্যাকারী। এই খুনের আসামী এবং হুমকিদাতাসহ ইয়াছীন হত্যার সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে দ্রুত আটক করে বিচারের আওতায় আনতে প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানায় তারা।

শুচ/ইখ/এনা

সীতাকুণ্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী বিএনপি নেতা শহীদুল্লাহ

0

স্টাফ রিপোর্টার, সীতাকুণ্ড থেকে:

আসন্ন সীতাকুণ্ড পৌরসভা নির্বাচনে ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হয়েছেন বিএনপি নেতা সহীদুল্লাহ। তিনি ভূইয়াপাড়া ৫ নং ওয়ার্ডের বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী। 

তিনি বলেন, পৌরসভা ৫ নং ভূইয়াপাড়া ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হয়েছি আমি। দৈনিক শুভ চট্টগ্রামের সাথে একান্ত আলাপ কালে তিনি বলেন, কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হলে তিনি এখন যেভাবে নিজের অর্থ দিয়ে সমাজের সেবা করে যাচ্ছেন। তার চেয়ে আরও ১০ গুণ বেশি সেবা করে যাবেন। 

তিনি বলেন, আমি প্রথমে অত্র ওয়ার্ডের জলাবদ্ধতা নিরসনে কার্যকরী ভূমিকা রাখবো। তার পাশাপাশি নারী নির্যাতন, ধর্ষণ প্রতিরোধ করে সমাজকে আলোর পথে আনবো। সমাজ থেকে মদ গাঁজা ইয়াবা দূর করবো। স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্রীদের ইভটিজিং থেকে রক্ষা করতে কার্যকরী ভূমিকা রাখার ঘোষণা দেন তিনি।

শুচ/ইখ/আআফা

সীতাকুণ্ডে প্রতিবন্ধী ভাইকে আটকে রেখে মাকে মারধর

0

স্টাফ রিপোর্টার, সীতাকুণ্ড থেকে :

সীতাকুণ্ড সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ঘোড়ামারা গ্রামে প্রতিবন্ধী আপন ভাইকে আটকে রেখে মাকে মারধর করেছে কুলাঙ্গার ছেলে। জোরপূর্বক সম্পত্তি লিখে না দেওয়ায় এমন কান্ড ঘটিয়েছেন বড় ভাই মহসিন (৫২) ও তার স্ত্রী সন্তানরা।

এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে সীতাকুন্ড মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করেছেন বৃদ্ধা মা রোকেয়া বেগম (৭৩)। সীতাকুণ্ড মডেল থানার এসআই ফারুক ডায়েরী করার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি তদন্ত করে প্রতিবন্ধী ছেলেদের উদ্ধার করে মায়ের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হবে।

ডাযেরীর বিবরণমতে, সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ঘোড়ামারা গ্রামের মৃত ইঞ্জিনিয়ার মোস্তফা কামাল ও রোকেয়া বেগমের ৩ ছেলের মধ্যে মেজো ছেলে আমজাদ হোসেন (বিটু) ও ছোট ছেলে দাউদ হোসেন দুইজনেই শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধী। আর এ সুযোগটি কাজে লাগিয়ে প্রতিবন্ধী মেজো ভাইকে ঘরে আটকে রেখে তার কাছ থেকে সম্পত্তি জোরপূর্বক লিখে নেওয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছে ।

মা রোকেয়া বেগম বলেন, তার বড় ছেলে মহসিন ও তার স্ত্রী সন্তানেরা মিলে তার প্রতিবন্ধী মেজো ছেলেকে চিকিৎসা করতেও নিতে দিচ্ছে না। সম্পত্তি জোর করে তার কাছ থেকে লিখে নেওয়ার জন্য তাকে জোরপূর্বক জিম্মী করে আমার কাছ থেকে  ৪ দিন ধরে আলাদা করে তার ঘরে আটকে রেখেছে ।

মঙ্গলবার আমার মেজো ছেলের সাথে কথা বলতে চাইলে প্রতিবন্ধী ছোট ছেলেও আমাকে গালি গালাজ করে মারধর করে এবং প্রাণরাশের হুমকি দিয়ে আমজাদ হোসেন (বিটু)কে টেনে হিচড়ে তাদের ঘরে নিয়ে আটকে রাখেে। এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে বড় ছেলে মহসিন ও তার স্ত্রী ছেলেসহ ৪ জনকে আসামিকে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (নং-১৫৫০) করেছি।

শুচ/ইখ/আআফা

 

সিঙ্গাপুরে সাকা চৌধুরীর ৮০০০ কোটি টাকার সন্ধান পেল দুদক

0

স্টাফ রিপোর্টার :

সিঙ্গাপুরে সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরীর ৮০০০ কোটি টাকার খোঁজ পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বিএনপির এই নেতাকে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ফাঁসি দেওয়া হয় ২০১৫ সালের ২২ নভেম্বর।

এর আগে দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান এক বাংলাদেশির পরিচয় উল্লেখ না করে বিপুল পরিমাণ টাকা পাচারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছিলেন। তিনি জানান, কয়েকটি সংস্থার যৌথ অনুসন্ধানে বিপুল এই অর্থের খোঁজ মিলেছে। অর্থ ফেরানোর চেষ্টা করছে সরকার।

তবে বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) দুদকের লিগ্যাল উইং শাখার একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, ওই বাংলাদেশি হচ্ছেন সালাউদ্দিন কাদের (সাকা) চৌধুরী। চট্টগ্রামের রাউজানের বাসিন্দা এই রাজনীতিবিদ চট্টগ্রাম-২, চট্টগ্রাম-৬, চট্টগ্রাম-৭ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন।

দুদকের আইনজীবী খুরশিদ আলম খান বলেন, ‘আমি কোনো রাজনৈতিক ব্যক্তির নাম উল্লেখ করতে চাচ্ছি না। অবশ্যই সত্যতা আছে। আরও বেশি টাকা হয়তো আমরা আনতে পারবো। আইনি প্রক্রিয়াটি একটু জটিল। তবে আনা যায়। একটু সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। পাচারের মামলা, মানিলন্ডারিং মামলা প্রত্যেকটাই আমরা সমানভাবে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছি।’

মুক্তিযুদ্ধের পর সাকা চৌধুরী দেশ ছেড়ে পালান। তার দাবি, ১৯৭৪ সালের এপ্রিলে তিনি দেশে ফেরেন। ১৯৭৫-এ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর পাল্টে যায় দেশের রাজনৈতিক চালচিত্র। দেশে ফেরার পর তিনি বারবার দল বদলে ক্ষমতার কাছাকাছি থেকেছেন। একপর্যায়ে স্বৈরশাসক এরশাদ সরকারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হন সাকা চৌধুরী। সবশেষে তিনি যোগ দেন বিএনপিতে। বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারে (২০০১-২০০৬) প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সংসদবিষয়ক উপদেষ্টাও হন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য।

২০১৫ সালের ২২ নভেম্বর একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায় গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দণ্ডাদেশ অনুযায়ী সাকা চৌধুরীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

শুচ/ইখ

পদ্মা সেতুতে বসলো ৩৯তম স্প্যান, আর বাকি দুুটি

0
স্টাফ রিপোর্টার :
মেগা প্রকল্প পদ্মা সেতুতে বসলো ৩৯তম স্প্যান। শুক্রবার দুপুর ১২টা ২০ মিনিটের দিকে পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তের মাঝপদ্মায় ১০ ও ১১ নম্বর পিলারের ওপর ৩৯ তম (’২-ডি’) স্প্যান বসানো হলো। এতে সেতুটির ৫ হাজার ৮৫০ মিটার দৃশ্যমান হলো। এখন মাত্র ২টি স্প্যানে ৩০০ মিটার সেতুর অবকাঠামো দৃশ্যমান হতে বাকি।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সিনিয়র জনসংযোগ কর্মকর্তা আবু নাসের জানান, গেলো অক্টোবরে সর্বোচ্চ ৪টি স্প্যান বসানো হয়। এরপর এ মাসে নভেম্বরেও তারই ধারাবাহিকতায় ৪টি স্প্যান বসানো সম্ভব হলো।

চলতি মাসের ৬, ১২, ২১ ও ২৭ তারিখে এ ৪টি স্প্যান বসানো হয়েছে। বাকি ২টি স্প্যানের ৪০ তমটি (স্প্যান ২-ই)  আগামী ২ ডিসেম্বর ১১ ও ১২ নম্বর পিলারের ওপর এবং সর্বশেষ আগামী ১০ ডিসেম্বর ১২ ও ১৩ নম্বর পিলারের ওপর ৪১ তম স্প্যান (স্প্যান ২-এফ) বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

শুচ/ইখ

মামুনুলকে প্রতিহতে হাটহাজারীতে সড়কে ছাত্রলীগ, অগ্নিসংযোগ

0
স্টাফ রিপোর্টার, হাটহাজারী থেকে :
চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আল আমিন সংস্থার তাফসিরুল কোরআন মাহফিলে অংশ নিতে অবস্থানরত হেফাজত ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হককে প্রতিহত করতে সড়কে অবস্থান নিয়েছে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা। শুক্রবার দুপুরে মামুনুলকে প্রতিহত করতে সড়ক অবরোধ ও অগ্নিসংযোগ করেন তারা।

বিকেলে নগর ছাত্রলীগের কর্মীদের নগরীর অক্সিজেন মোড়ে, চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে হাটহাজারী সড়কের বড়দীঘির পাড় এলাকায় ও হাটহাজারী উপজেলা ছাত্রলীগ, যুবলীগের নেতাকর্মীরা ফতেয়াবাদ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ১নং গেইট এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অবস্থান নেয়ার কথা রয়েছে।

ঘোষিত কর্মসূচির পূর্বে জুমার নামাজের আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ১নং গেইট হাটহাজারী মহাসড়ক এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সড়ক অবরোধ করে ও সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে ও অগ্নিসংযোগ করে। এতে মুহূর্তে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হয়। নেতাকর্মীরা সেখানে ‘রাজাকার যেখানে প্রতিরোধ সেখানে, মামুনুল হক যেখানে প্রতিরোধ সেখানে’, ‘মুক্তিযুদ্ধের হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার’, ‘বীর চট্টলার মাটিতে মামুনুল হকের ঠাঁই নাই’, ‘তুমি কে আমি কে বাঙালি বাঙালি’, ‘আমাদের ধমনীতে শহীদের রক্ত’, ‘জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান দিচ্ছেন।

র‌্যাব-৭ হাটহাজারী ক্যাম্প এর অধিনায়ক মেজর মুশফিকুর রহমান বলেন, চট্টগ্রাম হাটহাজারী মুখী মহাসড়ক ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধে খবর পেয়ে তাদেরকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। হাটহাজারীতে এখনো পর্যন্ত পরিস্থিতি শান্ত আছে। সেখানে আমাদের লোকজন আছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সবরকম প্রস্তুতি আছে। দ্ইুদিন যাবত মাহফিল হচ্ছে। আশা করি পরিস্থিতি ভালো থাকবে।

মামুনুল হক গতকাল হাটহাজারীর উদ্দেশ্যে রওনা দিয়ে আজ (শুক্রবার) সকাল সাড়ে আটটায় মাদ্রাসায় উপস্থিত হন। জুমার নামাজের পর বিশ্রাম নিয়ে বাদ এশা হাটহাজারী পাবর্তী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে তিনদিনের তাফসীরুল কুরআন মাহফিলের সমাপনী দিনে তিনি প্রধান বক্তার হিসেবে বক্তব্য রাখবেন বলে জানান আল আমিন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আহসান উল্লাহ মাস্টার।

শুচ/ইখ

ম্যারাডোনাকে হারিয়ে কাঁদছে পুরো বিশ্ব

0

খেলাধুলা ডেস্ক

হঠাৎ চলে গেলেন ফুটবল ইশ্বর দিয়েগো ম্যারাডোনা। আর্জেন্টাইন কিংবদন্তির আকস্মিক মৃত্যু মেনে নিতে পারছে না ফুটবল দুনিয়া। কদিন আগেই সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছিলেন তিনি। চিকিৎসকদের পরামর্শে ভর্তি হয়েছিলেন মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে। যেখান থেকে নতুন জীবন শুরুর কথা ম্যারাডোনার।

ইতালিয়ান ক্লাব নাপোলিতে ১৯৮৪ থেকে ১৯৯১ পর্যন্ত প্রায় সাত বছর খেলেছেন ম্যারাডোনা। কিংবদন্তির এমন বিদায়ে শোকাহত তার ক্লাব। এক বিবৃতিতে তারা বলেছে, ‘শহর ও ক্লাবের জন্য অনেক বড় এক ধাক্কা। আমরা শোকাহত। মনে হচ্ছে একজন মুষ্টিযোদ্ধা ছিটকে গেলেন। আমরা স্তম্ভিত। সবসময় আমাদের হৃদয়ে থাকবে, দিয়েগো।’

সর্বকালের সেরা ফুটবলারের তর্কে যার সঙ্গে সবসময় প্রতিদ্বন্দ্বিতা ছিল, সেই ব্রাজিল কিংবদন্তি পেলেও বন্ধুকে হারিয়ে শোকস্তব্ধ। রয়টার্সের সঙ্গে আলাপে পেলে বলেন, ‘এমন একজন বন্ধুকে হারানোর মতো দুঃসংবাদ পেলাম। ঈশ্বর তার পরিবারকে শোক সইবার শক্তি দিন। অবশ্যই, একদিন স্বর্গে আমরা একসঙ্গে ফুটবল খেলব।’

১৯৮৬ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ‘ঈশ্বরের হাত’ খ্যাত গোল করেছিলেন ম্যারাডোনা। সে ম্যাচে প্রতিপক্ষ দলে থাকা ইংল্যান্ডের সাবেক স্ট্রাইকার গ্যারি লিনেকারও আর্জেন্টাইন জাদুকরকে সর্বকালের সেরা মানেন।

এক টুইট বার্তায় লিখেছেন, ‘আর্জেন্টিনা থেকে খবর এল ম্যারাডোনা আর নেই। আমার প্রজন্মের সেরা ফুটবলার। তর্কহীনভাবে সর্বকালের সেরা। অবশেষে ‘ঈশ্বরের হাতে’ নিজেকে সপে দিয়ে শান্তি হয়তো পাবে।’

ম্যারাডোনার দেশ আর্জেন্টিনার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন টুইটারে শোক জানিয়েছে এভাবে, ‘আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্ট ক্লদিও তাপিয়ার মাধ্যমে আমাদের কিংবদন্তি দিয়েগো আরমান্দো ম্যারাডোনার মৃত্যুতে গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। আপনি সবসময় আমাদের হৃদয়ে থাকবেন।’

পর্তুগাল এবং জুভেন্টাসের ফুটবল সুপারস্টার ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো ইনস্টাগ্রামে লিখেছেন, ‘আজ আমি একজন বন্ধুকে বিদায় বলছি আর বিশ্ব বিদায় বলছে চিরায়ত এক প্রতিভাকে। আমাদের সময়ের অন্যতম সেরা একজন। অতুলনীয় এক জাদুকর। তিনি একটু তাড়াতাড়িই চলে গেলেন। কিন্তু রেখে গেলেন অগণিত ভক্ত। এ শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়। ওপারে ভালো থাকবেন। আপনাকে কখনও ভুলব না।’

ম্যারাডোনার উত্তরসূরী আর্জেন্টাইন খুদেরাজ লিওনেল মেসি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লিখেছেন, ‘সকল আর্জেন্টাইন ও সারাবিশ্বের সবার জন্য কষ্টের একটি দিন। তিনি আমাদের ছেড়ে গেছেন কিন্তু চলে যাননি। দিয়েগো অমর। আমি তার সঙ্গে কাটানো সকল সুন্দর মুহূর্ত নিজের কাছে রেখে দিয়েছি। তার পরিবার ও কাছের বন্ধুদের জন্য আমার সহমর্মিতা। শান্তিতে থাকুন ম্যারাডোনা।’

স্বদেশি ক্লাব বোকা জুনিয়র্সে দুই দফায় ১৯৮১-৮২ এবং ১৯৯৫-৯৭ মৌসুমে খেলেছেন ম্যারাডোনা। তারা শোক জানিয়েছে এভাবে, ‘অশেষ ধন্যবাদ। অমর দিয়েগো।’

আর্জেন্টাইন ক্লাব নিউওয়েলস ওল্ড বয়েজে ম্যারাডোনা খেলেছেন ১৯৯৩-৯৪ মৌসুমে। তারাও ঘরের ছেলেকে হারিয়ে শোকস্তব্ধ। ক্লাবটি লিখেছে, ‘কিছু বলার ভাষা নেই। ওপারে ভালো থাকবেন দিয়েগো।’

লা লিগার ক্লাব বার্সেলোনাতেও খেলেছেন ১৯৮২ থেকে ১৯৮৪ পর্যন্ত। তারা লিখেছে, ‘এফসি বার্সেলোনা আমাদের ক্লাবের খেলোয়াড় এবং বিশ্ব ফুটবলের আইকন দিয়েগো আরমান্দো ম্যারাডোনার মৃত্যুতে গভীর সমবেদনা জানাচ্ছে। ওপারে ভালো থাকবেন দিয়েগো। সবকিছুর জন্য ধন্যবাদ।’

লা লিগার আরেক সফল ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদ শোক জানিয়ে লিখেছে, ‘রিয়াল মাদ্রিদ এবং এর প্রেসিডেন্ট বিশ্ব ফুটবলের কিংবদন্তি দিয়েগো আরমান্দো ম্যারাডোনার মৃত্যুতে গভীর শোক জানাচ্ছে। তার পরিবার, বন্ধু, ক্লাব এবং সকল ফুটবল ভক্ত বিশেষ করে আর্জেন্টিনার, তাদের জন্য সমবেদনা। তিনি অসংখ্য ভক্তকুল রেখে গেছেন। বিশ্বজুড়ে লাখো ভক্তের কাছে কিংবদন্তি তিনি।

শুচ/ইখ

সীতাকুণ্ডে এসআই পরিচয়ে চাঁদাবাজি, থানায় সোপর্দ

0

স্টাফ রিপোর্টার, সীতাকুণ্ড থেকে :

সীতাকুণ্ডের ভাটিয়ারিতে এসআই পরিচয়ে বিভিন্ন বাস কাউন্টারের যাত্রীদের কাছ থেকে চাঁদাবাজির অভিযোগে  মোশারফ (৪০) নামে হত্যা মামলার এক আসামিকে ধরে থানায় সোপর্দ করেছে।

মঙ্গলবার রাত ১০টার সময় তাকে পুলিশের সোপর্দ করা হয়। এ ঘটনায় একটি বাস কাউন্টারের ম্যানেজার সেলিম বাদী হয়ে ভুয়া পুলিশের এসআই পরিচয় দানকারী মোশারফকে আসামী করে সীতাকুণ্ড মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

সীতাকুণ্ড থানার ওসি তদন্ত সুমন বণিক, ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পুলিশের এসআই পরিচয় দানকারী মোশারফ বিভিন্ন সময় বিভিন্ন বাস যাত্রীদের কাছে ইয়াবা ট্যাবলেট আছে বলে তারদেরকে জোরপূর্বক তার গাড়িতে তুলে নিয়ে তারদের কাছ থেকে চাঁদা আদায় করে ছেড়ে দেয়।

তিনি আরো বলেন, গ্রেপ্তারকৃত মোশারফ একটি হত্যা মামলা আসামী এবং তার কাছ থেকে ভুয়া পুলিশের এ্সআই পরিচয় পত্র জব্দ করে তাকে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।

শুচ/ইখ/আআফা

চট্টগ্রামে করোনার রোষ, বাড়ছে সংক্রমণ

0

স্টাফ রিপোর্টার: 
করোনার রোষ শুরু হয়েছে চট্টগ্রামে। গত ২৪ ঘন্টায় ১২৭০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৪২ জন করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরের বাসিন্দা ২০০ জন। জুন মাসের পর গত পাঁচমাসে চট্টগ্রামে এটিই সর্বোচ্চ সংক্রমণ।

সোমবার দুপুরে এমন তথ্য দিয়েছেন চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি। তিনি বলেন, গত ৫ দিনের সংক্রমণ থেকে ধারণা করা হচ্ছে চট্টগ্রামে করোনার দ্বিতীয় ওয়েভ শুরু হয়ে গেছে। স্বাস্থ্যবিধি না মানায় ক্রমেই সংক্রমণ বাড়ছে।

তিনি বলেন, সর্বশেষ গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচ মাসের রেকর্ড ছাড়িয়ে একদিনে সংক্রমণ ২৪২ জনে পৌছেছে। এদিন সরকারি-বেসরকারি আটটি ল্যাবে ১২৭০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ২৪২ জনের মধ্যে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর আগে গত ৮ জুলাই সর্বোচ্চ ২০৯ জনের করোনা শনাক্ত দেখেছিল চট্টগ্রাম।

এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট করোনা শনাক্ত রোগী ২৩ হাজার ৮৭০ জনে দাড়িয়েছে। এদের মধ্যে নগরের রোগী ১৭ হাজার ৮৫১ জন এবং ৬ হাজার ১৯ জন উপজেলা পর্যায়ের বাসিন্দা। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন ৩১৩ জন। যাদের ২১৯ জন নগরের এবং ৯৪ জন উপজেলার। অন্যদিকে ২১ নভেম্বর পর্যন্ত করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৮ হাজার ৬৭৪ জন।

সিভিল সার্জনের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় ফৌজদারহাটে অবস্থিত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) এ বিদেশগামীদের বাধ্যতামূলক করানো টেস্টসহ ২৭৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করানো হয়। তাতে করোনা শনাক্ত হয় ১৪ জনের দেহে।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ল্যাবে ৩৫৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করোনা করা হয়। তাতে করোনা শনাক্ত হয় দিনের সর্বোচ্চ ৫৯ জনের দেহে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৪২ জনের নমুনাপরীক্ষা করে ৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১৪৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৫৮ জনের দেহে করোনা শনাক্ত পাওয়া যায়। নগরের বেসরকারি ই¤েপরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবেও ১৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাতে করোনার জীবাণু পাওয়া যায় ৪৬ জনের দেহে।

চট্টগ্রামের আরেকটি বেসরকারি করোনা পরীক্ষাগার শেভরণ ল্যাবে ২৭৩ জনের করোনা পরীক্ষা করে ৫০ জন করোনা শনাক্ত হন। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ৩১ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৬ জনের দেহে করোনার জীবাণু পাওয়া যায়।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে সেগুলোতে করোনা নেগেটিভ আসে। চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল রিজিওন্যাল টিউবারকুলোসিস র‌্যাফারেল ল্যাবরেটরিতেও (আরটিআরএল) ২৪ ঘণ্টায় কারও নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি।

শুচ/ইখ

সীতাকুন্ড পৌর নির্বাচনে তৎপর মনোনয়ন প্রত্যাশীরা

0

আবদুল্লাহ আল ফারুক. সীতাকুণ্ড  থেকে :

তফসিল ঘোষণার পর সীতাকুণ্ড পৌর নির্বাচনে উৎসাহ-উদ্দীপনা বেড়ে গেছে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের। ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে তৎপরতা বেড়েছে তাদের। এরমধ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থিত নেতাকর্মীরা একটু বেশি তৎপর।

যারা তফসিল ঘোষণার আগে থেকেই দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ঘরোয়া বৈঠকসহ বিভিন্নভাবে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। এদের মধ্যে এবারও মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ার আশায় তৎপর রয়েছেন বর্তমান মেয়র ও সীতাকুন্ড পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদিউল আলম।

তিনি বলেন, গত ৫ বছর ধরে আমি এলাকার মানুষের সাথে কাটিয়েছি। দলের দায়িত্বের পাশাপাশি এলাকার উন্নয়ন কাজও করেছি। আশা করি দল এবারও আমার কর্মের মূল্যায়ন করবে। আশা করছি মনোনয়ন আমিই পাব।

মেয়র পদে প্রার্থী হতে চান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ ইসহাক। মনোানয়ন পেতে শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের সাথে যোগাযোগ রেখে চলেছেন তিনি। আধুনিক সীতাকুন্ড গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন চাইবেন বলে জানিয়েছেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সামাদ।

এবার মেয়র পদে নির্বাচন করতে চান বর্তমান পৌর কাউন্সিলর ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক স¤পাদক মাইমুন উদ্দিন মামুন। এলাকায় তার রয়েছে জনপ্রীয়তা। তিনি জানান, আমি পরপর তিনবারের কাউন্সিলর। তখন ওয়ার্ড পর্যায়ে মানুষের সেবা করার সুযোগ পেয়েছি। এবার মেয়র নির্বাচিত হয়ে সীতাকুন্ড পৌরসভার মানুষের পাশে থাকতে চাই। পৌরসভাকে মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। গরীব অসহায় মানুষের নির্ভরতার প্রতিক হতে চাই।

অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করার প্রত্যাশা নিয়ে মেয়র পদে মনোনয়ন চান উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক স¤পাদক মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী। মেয়র পদে মনোনয়ন চান বর্তমান পৌর কাউন্সিলর সফিউল আলম চৌধুরী মুরাদ। তিনি পৌরসভার পরপর দুইবারের কাউন্সিলর। কাউন্সিলর জুলফিকার আলী শামীমও এবার মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন চান। তিনিও দুইবারের কাউন্সিলর।

আধুনিক পৌরসভায় রূপান্তর করার প্রত্যাশায় মোহাম্মদীয়া গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ার মো. জাহাঙ্গীর, আবুল কাশেম ওয়াহেদীও প্রার্থী হতে চান। মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী রোটারিয়ান মোহাম্মদ ইউসুফও। তিনি বলেন, স্বৈরাচার ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী আন্দোলনে অবদান রেখেছি। পৌরসভার উন্নয়নেও অবদান রাখতে চাই।

মেয়র পদে প্রার্থী হতে চান চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য গোলাম রব্বানীও। তিনি বলেন, গতবারও দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলাম। দলের কথা ভেবে সরে দাঁড়িয়েছি। মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জাহেদ চৌধুরী ফারুকও। তিনি বলেন, স্কুলে ছাত্রলীগ দিয়ে শুরু। আজ অবধি দলের জন্য নিজেকে উজাড় করে দিয়েছি। এবার পৌরবাসীর উন্নয়নে নিজেকে উজাড় করতে চাই। মেয়র পদে তরুণ প্রার্থী ভুঁইয়া সামী আল মুজতবা নির্বাচন করতে চান। মনোনয়ন পেতে তিনি জনসংযোগ করছেন এবং লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন।

আওয়ামী লীগ থেকে মেয়র পদে একাধিক প্রার্থী হতে চাইলেও বিএনপি থেকে প্রার্থী হতে ইচ্ছুক কারো কোন তৎপরতা আপাতত নেই। তবে পৌর বিএনপির সভাপতি ইউসুপ নিজামী, পৌর বিএনপি নেতা আলমগীর ইমরানও মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন এবং নীরবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এর পেছনে মূলত হামলা-মামলার ভয়ের কথা জানিয়েছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সীতাকুন্ড পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে গতবারের বিএনপি প্রার্থী উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা দলের স¤পাদক ও সাবেক মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কমান্ড মো. আবুল মুনসুর বলেন, দল যদি নির্বাচনে যায় তাহলে এবারও মেয়র পদে নির্বাচন করব।

এরমধ্যে নাগরিক কমিটির প্রার্থী হিসেবে মেয়র পদে লড়তে চান সাংবাদিক মো. জহিরুল ইসলাম। এ লক্ষ্যে তিনিও প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

মনোনয়ন প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল বাকের ভুঁইয়া বলেন, বড় রাজনৈতিক দল থেকে একাধিক নেতা সমর্থন লাভের প্রত্যাশা করেন। এলাকার উন্নয়নে নিবেদিত ব্যক্তিকেই মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, রোববার সন্ধ্যায় দেশের তিন শতাধিক পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুসারে ভোট হবে ২৮ ডিসেম্বর। ইভিএমে প্রথম ধাপে ২৫টি পৌরসভায় ভোট হবে। চট্টগ্রামে ওইদিন একমাত্র সীতাকুন্ড পৌরসভায় নির্বাচন হবে।

সীতাকুন্ড উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ বলেন, ১৯৯৮ সালে ১ এপ্রিল ২৮ বর্গমাইল আয়তনের সীতাকুন্ড পৌরসভা গঠিত হয়। নয়টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ৩৪ হাজার ৮১৩ জন। নির্বাচন হবে ১৭টি কেন্দ্রে। ঘোষিত তফসিল অনুযাযী, মনোনয়ন দাখিলের শেষ তারিখ ১ ডিসেম্বর, মনোনয়ন বাছাই ৩ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ১০ ডিসেম্বর এবং ভোটগ্রহণ ২৮ ডিসেম্বর।

তিনি বলেন, এবারই প্রথমবারের মতো সীতাকুন্ড পৌরসভার সব কয়টি ভোট কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর সর্বশেষ এ পৌরসভার নির্বাচন হয়েছিল।

শুচ/ইখ/আআফা

সর্বশেষ

WORDPRESS PLUGIN PREMIUM FREEDownload theme freegiay nam da thattui boc vali co gian