আব্দুল্লাহ আল ফারুক, সীতাকুণ্ড থেকে :

সীতাকুণ্ড পৌর নির্বাচনে আওয়ামীলীগ, বিএনপির ও নাগরিক কমিটির প্রার্থীসহ তিন জন মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন । মঙ্গলবার মনোনয়ন জমা দানের শেষ দিনে উপজেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা ও সহকারি রিটানিং অফিসার বুলবুল আহমেদ কাছে তিন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র জমা দেন ।

প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী বর্তমান মেয়র ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলম, বিএনপির প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল মনছুর। অপর প্রার্থী নাগরিক কমিটির সাংবাদিক জহিরুল ইসলাম।

তিন প্রার্থী মনোনয়ন ফরম জমা দানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সীতাকু উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ বুলবুল আহমেদ। তিনি বলেন, আগামী বৃহস্পতিবার মনোনয়ন ফরম যাচাই বাচাই করা হবে।

জানা যায়, গত ২০১৫ সালে ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত সীতাকুণ্ড পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্ধিতা করে বিজয়ী হন বর্তমান মেয়র মুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলম। ওই সময় বিএনপি প্রার্থী ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা আবুল মনছুর, জামায়াতের তৌহিদুল ইসলাম ও জাতীয় পাটির নুরুন নবী ভূঁইয়া।

এছাড়া আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন সাবেক মেয়র নায়েক (অব.) শফিউল আলম, ও সাবেক পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি সিরাজ উদৌলা সুট্টু। তবে ওই সময় ভোটের দুইদিন আগে বিদ্রোহী প্রার্থীদের উপর ও তাদের বাড়িঘরে পুলিশের উপস্থিতিতে হামলা শুরু হলে তারা মৌখিকভাবে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন। এসময় অন্যান্য দলের প্রার্থীরা ছিলো নিরব।

সীতাকুণ্ড উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান এস এম আল মামুন বলেন, ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগের প্রার্থীর কাছে বিএনপি প্রার্থী বিপুল ভোটে পরাজিত হবে। আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা বদিউল আলম বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার পৌর এলাকায় বিগত সময়ে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। সেই হিসাবে এবার নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন তিনি।

সাংবাদিক জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমি সতন্ত্র নাগরিক কমিটির প্রার্থী, আমি নির্দলীয়, সকল দলের কর্মি সমর্থকরা আমাকে ভোট দিবে, আমিই বিজয়ী হবে। বিএনপির প্রার্থী আবুল মনছুর বলেন, নির্বাচন সুষ্ট হবে বিএনপি বিজয় কেউ ঠেকাতে কেউ পারবে না। দলের মধ্যে কোন বিদ্রোহী প্রার্থী নেই বলেও জানান তিনি।

সীতাকুণ্ড উপজেলা বিএনপি সদস্য সচিব জহিরুল ইসলাম বলেন, বিএনপি কোন বিদ্রোহী প্রার্থী নেই। একক প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল মুনছুর।

শুচ/ইখ/আআফা