স্টাফ রিপোর্টার :
চট্টগ্রামে প্রথমবারের মত পালিত হলো রেলওয়ের জন্মদিন। এ উপলক্ষে যাত্রীরা হাতে পেল ফুল-চকলেট। তবে করোনার কারণে এই আয়োজন ছিল সীমিত। তবুও দিনটি ঘিরে মিলন মেলায় পরিণত হয় রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল।

কর্মকর্তারা জানান, দিনের শুরুতে ফুল হাতে তুলে দিয়ে যাত্রীদের স্বাগতম জানান রেলের শীর্ষ কর্মকর্তারা। এতেই খুশিতে মেতে উঠে স্টেশনে আসা যাত্রীরা। তাদের নিয়ে খোশগল্পে মেতে উঠেন কর্মকর্তারাও। তবে শীর্ষ কর্মকর্তাদের কাছে পেয়ে অনেকে করে বসেন নানা অভিযোগ।

রবিবার বাংলাদেশ রেলওয়ের ১৫৮তম জন্মদিনকে ঘিরে এভাবে ভালোবাসার উষ্ণতা ছড়িয়েছে চট্টগ্রাম রেলস্টেশনজুড়ে।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) সরদার শাহাদাত আলী এ প্রসঙ্গে বলেন, প্রথমবারের মত পালিত হয়েছে দিবসটি। ছেড়ে যাওয়ার আগ মুহুর্তে প্রথমে রজনীগন্ধা ফুল উপহার দেওয়া হয় সুবর্ণ এক্সপ্রেসের যাত্রীদের।

একে একে রজনীগন্ধা ফুল উপহার দেওয়া হয় বিজয় এক্সপ্রেস, চট্টলা এক্সপ্রেস এবং পাহাড়িকা এক্সপ্রসের যাত্রীদের হাতে। সাথে চকলেট। এভাবে যাত্রীদের সাথে আনন্দ ভাগাভাগি করে নেওয়া হয়েছে জন্মদিনের আয়োজনে।

সরদার শাহাদাত আলী বলেন, করোনা দুঃসময়ে দিবসটি প্রথমবারের মত শুরু হয়েছে। তাই কর্মসূচিও সীমিত ছিল। আগামী বছর পরিস্থিতি ভালো থাকলে বড় পরিসরে পালন করা হবে দিবসটি। সবাই মিলেমিশে সততার সাথে কাজ করলে রেলকে অনেক দূরে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব।

যাত্রীদের উদ্দেশ্য সরদার শাহাদাত আলী বলেন, ‘রেল যাত্রীদের স¤পদ। রেলকে পরিস্কার-পরিছন্ন রাখার ব্যবস্থা করেছি। সাথে নতুন নতুন সংযোজন আসছে।’ এর সবটুকুই রক্ষার জন্য যাত্রীরা সচেষ্ট থাকবে এই প্রত্যাশা করছি আমি।

সম্প্রতি রেলপথে পাথর ছুঁড়ে যাত্রী আহত হওয়ার ঘটনা বাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, যাত্রীদের পাশাপাশি স্থানীয়দের কাছে আমরা প্রত্যাশা করি তারা পাথর ছোঁড়া বন্ধে জোরালো ভূমিকা রাখবে। আমার প্রত্যাশা রেলওয়েতে দায়িত্বরত কর্মকর্তা কর্মচারী, যাত্রী, স্থানীয় ও সংবাদকর্মী সবাই যেন রেলের উন্নয়নে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখে।

শুচ/ইখ