স্টাফ রিপোর্টার :
স্বামী-স্ত্রী দু‘জন মিলে বাস করতেন চট্টগ্রামের পাহাড়তলী থানার পশ্চিম নাসিরাবাদের আমতল এলাকার একটি বাসায়। আশেপাশের সবাই জানতো তারা চাকরিজীবী। প্রতিবেশীদের সঙ্গে তাদের মেলামেশাও ছিল স্বাভাবিক।

কিন্তু প্রতিবেশীদের সরল বিশ্বাসের আড়ালে এই বাসায় স্বামী-স্ত্রী গড়ে তুলে ইয়াবা বেচাকেনার হাট। প্রতিবেশীরা না জানলেও অবশেষে গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে নোয়াখালী দম্পতির ইয়াবা হাটের তথ্য জেনে ফেলেন চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭।

ফলে বুধবার (১৪ অক্টোবর) সকালে এই বাসায় অভিযান চালিয়ে স্বামী জাহাঙ্গীর আলম ও স্ত্রী নুর জাহানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে লুকানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয় ১৪ হাজার ১৪০ পিস ইয়াবা।

যা দেখে তাজ্জব প্রতিবেশীরা। এমন তথ্যই দিলেন র‌্যাব-৭ চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক মো. মাহমুদুল হাসান। তিনি বলেন, নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার পশ্চিম মাইজচরা ইউনিয়নের মো. আবুল কাশেমের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম, স্ত্রী নুর জাহানকে নিয়ে চট্টগ্রামের পাহাড়তলী এলাকায় ওই ভাড়া বাসায় থাকতেন।

দীর্ঘদিন যাবত তারা প্রতিবেশীদের চোখকে ফাঁকি দিয়ে কক্সবাজার থেকে ইয়াবা এনে চট্টগ্রাম শহরের বিভিন্ন এলাকার মাদক কারবারি ও মাদকসেবীদের কাছে বিক্রি করে আসছিল। কিন্তু গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে নিশ্চিত হয়ে র‌্যাব-৭ নগরীর পাহাড়তলী থানার পশ্চিম আমতলা এলাকায় অভিযান চালায়।

অভিযানে স্বামী-স্ত্রীকে আটকের পর তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বাসার টয়লেটের ছাদে কৌশলে লুকানো অবস্থায় ১৪ হাজার ১৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। যার মূল্য ৭০ লাখ ৭০ হাজার টাকা। তাদের পাহাড়তলী মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাব-৭ এর এই কর্মকর্তা।

শুভ চট্টগ্রাম/শিউলি