নিজস্ব প্রতিবেদক:
জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও স¤পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলায় কক্সবাজার-৪ আসনের বহুল আলোচিত সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছে চট্টগ্রামের একটি আদালত।

রবিবার বেলা ১২টার দিকে চট্টগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ মো. ইসমাইল হোসেনের আদালতে এই অভিযোগ গঠন করা হয় বলে জানান দুদকের আইনজীবী কাজী সানোয়ার হোসেন লাভলু।

তিনি বলেন, অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির বিচার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আগামী ১৫ অক্টোবর আদালত এই মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য করেছেন।

দুদকের আইনজীবী বলেন, উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত বদির আইনজীবীর করা আবেদন নামঞ্জুর করেন। এ সময় বিচারক বদিকে তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ পড়ে শোনান। নিয়ম অনুযায়ী আসামি বদির কাছে আদালত জানতে চায়-তিনি দোষী না নির্দোষ। বদি নিজেকে নির্দোষ দাবি করে সুবিচার চান। পরে বিচারক তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর সিদ্ধান্ত দেন।

অভিযোগ গঠনের শুনানি শুরুর পর আসামির কাঠগড়ায় দাঁড়ান আবদুর রহমান বদি। এ সময় তার আইনজীবী রফিকুল ইসলাম আদালতকে বলেন, তার মক্কেল নির্দোষ। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে তাকে এই মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। বদিকে মামলা থেকে অব্যাহতির আবেদন করেন তিনি।

কিন্তু দুদকের অনুসন্ধান ও তদন্তে বদির তথ্য গোপন ও জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের প্রমাণ পাওয়া গেছে। তাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। দুদকের পক্ষ থেকে এই তথ্য আদালতকে দেওয়া হলে আদালত বদির পক্ষের আবেদন না মঞ্জুর করেন।

এর আগে ইয়াবা পাচার নিয়ে বহুল আলোচিত সাবেক সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদির বিরুদ্ধে ৪৩ লাখ ৪৩ হাজার ৯৯৪ টাকার তথ্য গোপন এবং ৬৬ লাখ ৭০ হাজার টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত স¤পদ অর্জনের অভিযোগে ২০০৭ সালে মামলা করে দুদক। পরের বছর ২০০৮ সালের ২৪ জুন তদন্ত শেষে তার বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, আবদুর রহমান বদি কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনের দুইবারের সংসদ সদস্য। ইয়াবা পাচারসহ বিভিন্ন কর্মকান্ডে তুমুল সমালোচনার মুখে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের নির্বাচনে তিনি মনোনয়ন বঞ্চিত হন। সেই আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য তার স্ত্রী শাহীন আক্তার চৌধুরী।