নিজস্ব প্রতিবেদক :

চট্টগ্রাম মহানগরীর সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অভয়মিত্র মহাশ্মশান উান্নয়ন সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণে বেসরকারী ধর্মীয় বা সামাজিক প্রতিষ্ঠানের সম্পৃক্ততাকে স্বাগত জানিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম সুজন।

তিনি বলেন, প্রশাসক হিসেবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হবার পর জানতে পারি পূর্ণিমা-আমবশ্যা তিথিতে কর্ণফুলীতে জোয়ারের সময় মহাশ্মশানটি হাঁটু পানিতে ডুবে যায়। এই সময় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের শবদেহের শেষকৃত্য সম্পন্ন করা অসম্ভব হয়ে পড়ে। এই সমস্যার সমাধানে এখানকার মন্দির সংস্কার ও প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত উন্নয়নও প্রয়োজন।

তিনি বৃহস্পতিবার সকালে টাইগারপাসস্থ চসিক নগর ভবনে অভয়মিত্র মহাশ্মশানের সংস্কার ও উন্নয়নে সহায়তা প্রদানে আগ্রহী অদুল-অনিতা ট্রাষ্টের কো-চেয়ারম্যান শ্রীমতি অনিতা চৌধুরীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাতকালে এসব কথা বলেন।

তিনি অদুল-অনিতা ট্রাষ্টকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলো রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়নে ধর্মানুরাগী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সহায়তা ধর্মীয় ও মানবিক সামাজিক উদ্যোগ। অভয়মিত্র মহাশ্মশানের উন্নয়ন ও অবকাঠামোগত স্থাপনায় চসিকের পাশাপশি অদুল-অনিতা ট্রাষ্টের সহায়তা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের আকাঙ্খা পূরণের দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

প্রশাসক চসিকের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম মানিককে অভয়মিত্র মহাশ্মশানের উন্নয়নে করনীয় বিষয়ে একটি প্রতিবেদন তৈরী করার নির্দেশনা দেন।