নিজস্ব প্রতিবেদক:
চট্টগ্রামের ভয়ঙ্কর শিশু ধর্ষক বেলাল দফাদার পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। ওই সময় একটি অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সকালে এ তথ্য দেন বায়েজীদ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রিটন সরকার। তিনি জানান, শিশু ধর্ষক বেলাল দফাদার নগরীর বায়েজীদ থানার শান্তিনগর এলাকার এক পাহাড়ে আত্নগোপনে আছে। এই খবর পেয়ে বুধবার (২২ জুলাই) দিনগত মধ্যরাতে পুলিশ তাকে ধরতে গেলে সে গুলি ছোড়ে। পুলিশও আত্নরক্ষায় গুলি ছোড়ে। এতে তার মৃত্যু ঘটে। পরে তার লাশ চমেক হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। এ সময় একটি দেশীয় তৈরী অস্ত্র ও ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

ওসি জানান, বেলাল দফাদার একজন সিরিয়াল রেপিস্ট। গত ৬ মাসে থানার শান্তিনগর এলাকায় ৭ শিশু ধর্ষণের শিকার হয়। এরমধ্যে চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে এক শিশু বলাৎকারের শিকার হয়। সর্বশেষ গত ২০ জুলাই বিকেলে ধর্ষণের শিকার হয় ৭ বছরের এক শিশু।

এর আগে ফেব্রুয়ারি মাসে দুজন, এপ্রিল মাসে একজন, জুন মাসে একজন এবং জুলাই মাসে একজনসহ আরো চার শিশু কন্যা ধর্ষণের শিকার হয়েছে ওই এলাকায়। আর এসব ধর্ষণের জন্য স্থানীয়রা বেলাল দফাদারকে দায়ী করে। কিন্তু সে ধরা-ছোঁয়ার বাইরে ছিল।

ওসি বলেন, এর আগে ২০১৬ সালে দু’শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশ বেলাল দফাদারকে গ্রেপ্তার করেছিল। জামিনে বেরিয়ে এসে সে আবারো শিশু ধর্ষণের সাথে স¤পৃক্ত হয়। সে এমনি এক ভয়ঙ্কর রেপিস্ট। আলামত নষ্ট করতে ধর্ষণের শিকার শিশুদের পরনের রক্তাক্ত কাপড় ছিঁড়ে ফেলে দিত সে। পাশাপাশি তাদের গোসল করিয়ে দিতো।