নিজস্ব প্রতিবেদক:
চট্টগ্রামে করোনায় নুরুল আবছার চৌধুরী নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মৃত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ জনে। আর আক্রান্ত বেড়ে দাড়িয়েছে ৮৬ জনে।

সোমবার সকালে এ তথ্য জানান চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি। তিনি জানান, রোববার রাতে চট্টগ্রামের বিআইটিআইডি ল্যাবে ১৮৩টি নমুনা পরীক্ষায় পাঁচজনের করোনা শনাক্ত হয়। এরমধ্যে মৃত নুরুল আবছারও রয়েছেন বলে জানান ।

তিনি জানান, আক্রান্তদের দুজনের ঠিকানা হিসেবে নগরের দামপাড়া পুলিশ লাইন্সের কথা উল্লেখ আছে। তাদের বয়স যথাক্রমে ৩৮ ও ৫৫। ৫৫ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি অন্তত চারদিন আগে মারা গেছেন। মৃত্যুর পর নমুনা পরীক্ষায় তার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট পাওয়া গেছে।

এদিকে নগর পুলিশের একটি সূত্র তাদের এক সদস্য করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে স্বীকার করেছে। তিনি বর্তমানে চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালে ভর্তি আছেন। তবে মৃত ব্যক্তির বিষয়ে তাদের কাছে কোনো তথ্য নেই বলে সূত্র জানান।

সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, বিআইটিআইডিত বাকি যে তিনজনের নমুনায় করোনা শনাক্ত হয়েছে তাদের একজন চট্টগ্রাম বন্দরের কর্মচারী। তার বাড়ি ইপিজেড থানার সল্টগোলা ক্রসিংয়ের নিউমুরিং রোডে। ৬২ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি বর্তমানে বিআইটিআইডিতে ভর্তি আছেন। আর মৃত নুরুল আবছার চৌধুরী (৫৫) নগরীর চান্দগাঁও থানাধীন মোহরার আলম খান চৌধুরী বাড়ির বাসিন্দা।

তার মেয়ে জানান, গত ২৬ এপ্রিল অসুস্থ হয়ে পড়েন তার বাবা। এরপর ২৭ এপ্রিল তাকে বিআইটিআইডিতে ভর্তি করা হয়। ২৮ এপ্রিল তার নমুনা সংগ্রহ করা হলে তিনি বাড়িতে ফিরে যান। এরপর ৩০ এপ্রিল মারা যান। মৃত্যুর পর করোনা আতঙ্কে স্থানীয় মসজিদের ইমাম-মুয়াজ্জিনরা বাবার দাফন-কাফনে এগিয়ে আসেননি। ১ মে গাউসিয়া কমিটির সদস্যরা পিপিই পরিধান করে দাফন স¤পন্ন করেন।

সিভিল সার্জন সূত্র জানায়, চট্টগ্রামে শনাক্ত করোনা রোগীদের মধ্যে এ পর্যন্ত ৭ জন মারা গেছেন। ২২ জন সুস্থ হয়ে বাড় ফিরেছেন। আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৬১ জন। আর আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৬ জনে।

আক্রান্তের মধ্যে নগরের ৫৪ জন, সাতকানিয়ার ১৬ জন, লোহাগাড়ার একজন, সীতাকুন্ডের ৩ জন, বোয়ালখালীর ২ জন, পটিয়ার ২ জন, চন্দনাইশের ২ জন, মিরসরাইয়ের ২ জন আনোয়ারার ১ জন, সন্দ্বীপের ১ জন, রাঙ্গুনিয়ার ১ জন, ফটিকছড়ির ১ জন রয়েছেন।