স্থানীয় প্রতিনিধি, ফটিকছড়ি :
ফটিকছড়িতে পুলিশের এএসআই আবুল কাশেমের পরিবারে সদস্যের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ হামলায় পুলিশ পরিবারের ৪ জন মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে। ২৫ এপ্রিল শনিবার উপজেলার ভূজপুর থানাধীন ১নং বাগান বাজার ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের পূর্ব গজারিয়া গ্রামের কাশেম পুলিশের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, জায়গা-জমির শত্রুতার জের ধরেই পরিকল্পিতভাবে হামলা করেছে একই এলাকার প্রতিপক্ষ তৌহিদুল ইসলাম ও তার পরিবার। এতে মারাত্মকভাবে আহত হন আবুল খায়ের (৬৫) তার স্ত্রী মুবাশ্বেরা খাতুন(৫৫), তার বড় ভাই আব্দুল খালেক এবং ছোট ভাই শাহ আলম। এরা সবাই এএসআই আবুল কাশেমের পরিবারের সদস্য। তিনি বর্তমানে খাগড়াছড়ি পুলিশ লাইনে কর্মরত রয়েছেন।
আহত আবুল খায়ের বলেন, তৌহিদ গং এর সাথে জায়গা-জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। উক্ত বিরোধের জের ধরে আমি আদালতে মামলাও দায়ের করি। মামলাটি এখনো চলমান। মামলা করার পর থেকেই তারা আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয় এবং বিভিন্ন ধরনের আক্রমন শুরু করে।
২৫ এপ্রিল শনিবার আমি ও আমার স্ত্রী জমি থেকে গরু আনার পথে অভিযুক্ত তৌহিদ ও তার সাঙ্গ-পাঙ্গ মিলে প্রথমে আমাদের দুজনের উপর ইট, রড, দিয়ে মারতে থাকে। এসময় আমার বড় ভাই আব্দুল খালেদ ও ছোট ভাই শাহ আলম আমাদের বাঁচাতে আসলে তাদেরকেউ মারতে থাকে। এক পর্যায়ে আশে পাশের লোকজন আমাদের আর্তচিৎকারে বাঁচাতে আসলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।
এ ঘটনায় ১১ জনকে আসামী করে ভূজপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়। আসামীরা হলেন, তৌহিদুল ইসলাম (৬৫) পিতা; মৃত তনু মুন্সি। সৈয়দ আলীর পুত্র আব্দুল হাই(৪০) ও আব্দুল ওদুদ (৬০), জাফর আলী (২২), ওমর আলী (১৮), আব্দুস সালাম (১৯), আব্দুল গফুর, পারুল আক্তার (২৭), সুফিয়া খাতুন(২৮)।
এরা সকলে ১ নং বাগান বাজার ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের পূর্ব গজারিয়া গ্রামের বাসিন্দা। এই বিষয়ে দাঁতমারা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ওসি সরোয়ারদী সরোয়ার বলেন, থানায় মামলা হয়েছে। মামলাটি বর্তমানে তদন্তাধীন রয়েছে।